১৯ বছর পর চ্যাম্পিয়ন: খুশিতে কারও ফোনই ধরেননি কাজী সালাউদ্দিন

গত ২০০৯ সাল থেকে দক্ষিণ এশিয়ান ফুটবল ফেডারেশন সাফের সভাপতির দায়িত্বে আছেন কাজী মো. সালাউদ্দিন। তার আমলে বাংলাদেশ জাতীয় দল একবারও জিততে পারেনি সাফের শিরোপা। এদিকে বয়স ভিত্তিক নারী দল একাধিকবার সাফের শিরোপা জিতলেও সিনিয়রদের জিততে না পারার আক্ষেপ তাড়িয়ে বেড়াচ্ছিল কাজী মো. সালাউদ্দিনকে। অবশেষে তার সেই আক্ষেপ দূর করলো মেয়েরা।

গতকাল সোমবার ১৯ সেপ্টেম্বর কাঠমান্ডুতে স্বাগতিক নেপালকে ফাইনালে ৩-১ গোলে হারিয়ে বাংলাদেশের মেয়েরা প্রথমবারের মতো শিরোপা জিতলো সাফ চ্যাম্পিয়নশিপের। কাজী মো. সালাউদ্দিন সাফের সভাপতি থাকাকালীন এটিই সিনিয়র সাফে বাংলাদেশের প্রথম শিরোপা।

এদিকে সাফের সভাপতি হলেও ফাইনাল দেখতে নেপাল যাননি সালাউদ্দিন। বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি ঢাকা বসেই দেখেছেন সাবিনা-কৃষ্ণাদের খেলা। বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর খুশিতে তিনি কারও ফোনই নাকি ধরেননি। এদিকে গণমাধ্যমকে কাজী মো. সালাউদ্দিন তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, আমি অনেক আনন্দিত, অনেক খুশি। দলের কারও সঙ্গে কথা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে বাফুফে সভাপতি বলেন, বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর অনেকেই ফোন করেছিলেন। আমি ফোন ফেলে রেখেছিলাম। খুশিতে কারও ফোন ধরিনি।

এদিকে বাংলাদেশের এ সাফল্যের পেছনে মেয়েদের দীর্ঘ পরিশ্রমের কথা উল্লেখ করেছেন বাফুফে সভাপতি। তিনি বলেছেন, ৫-৬ বছর ধরে মেয়েরা যে কষ্ট করেছে, ওদের ভালো দলে পরিণত করতে আমাদের যে প্রচেষ্টা ছিল, তার ফসল এই চ্যাম্পিয়ন হওয়া।

Leave a Reply

Your email address will not be published.