একই দিনে মামা ভাগ্নের মৃত্যু, নির্বাক ১০ দিনের নববধূ

রংপুরে একই দিনে মামা ভাগ্নের মৃত্যু হয়েছে। রংপুর মহানগরীর অগ্রণী ব্যাংকের ভেতর থেকে শামীম আহমেদ (২২) নামের এক নিরাপত্তাকর্মীর লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এদিকে একই দিনে বাড়িতে তার মামার মৃত্যু হয়েছে। শামীম ১০ দিন আগে বিয়ে করেছিলেন।রোববার সকালে ব্যাংক খুলে সোফায় শামীমের লাশ পাওয়া যায়। শনিবার ডিউটি করে তিনি ব্যাংকে ডিউটি করছিলেন। ধারণা করা হচ্ছে, স্ট্রোক বা বিষপানে তার মৃত্যু হয়েছে। ময়নাতদন্তের পর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে বলে জানিয়েছে পুলিশ।

রংপুর মহানগরীর সেন্ট্রাল রোড শাখা অগ্রণী ব্যাংকের ম্যানেজার আরিফুল ইসলাম জানান, ১৭ মাস ধরে অগ্রণী ব্যাংক সেন্ট্রাল রোড শাখায় নিরাপত্তাকর্মী হিসেবে কর্মরত ছিলেন শামীম। শনিবার শামীমের ডিউটি না থাকলেও আরেকজন না আসায় তাকে প্রক্সি ডিউটির জন্য দুপুরে ডেকে নেয়া হয়। ডিউটি শেষে প্রতিদিন রাতে বাড়ি ফিরলেও শনিবার রাতে ব্যাংকেই ছিলেন তিনি। রোববার সকাল সাড়ে ৯টায় ব্যাংক খোলার পর দেখা যায় শামীম একটি সোফায় শুয়ে আছেন। ডাকাডাকি করে তার কোনো সাড়া না পাওয়ায় কাছে গিয়ে দেখা যায় মুখে লালা ঝরছে। পরে পুলিশকে খবর দেয়া হলে তারা এসে লাশ উদ্ধার করে রংপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

পুলিশ ছাড়াও পিবিআইও ঘটনাস্থলে আসে।শামীম মিঠাপুকুর উপজেলার রাণীপুকুর গ্রামের এরশাদ মোড় এলাকার আমজাদ হোসেনের ছেলে। ১০ দিন আগে তিনি বিয়ে করেছেন। তার স্ত্রী এবার এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। এ ঘটনায় তার স্ত্রী নির্বাক হয়ে গেছেন।শামীমের ফুফাত ভাই আব্দুর রাজ্জাক জানান, ‘শামীমের মামা সকালে মারা গেলে বাড়ি থেকে ফোন দিয়ে তাকে পাচ্ছিল না। পরে আমরা এসে দেখি তার লাশ। কিভাব সে মারা গেলে এটা আমরা জানতে চাই।’

শামীমের ভাই শরিফুল ইসলাম জানান, শামীম ১০ দিন আগে বিয়ে করেছেন। ভাই প্রতিদিন রাতে বাড়ি গিয়ে আবার সকালে আসেন। কিন্তু শনিবার ভাই বাড়ি যাননি। সকালে মামা মারা যাওয়ার খবর দেয়ার জন্য মোবাইল করলে তিনি রিসিভ করেননি। পরে শুনি ব্যাংকের ভেতরে ভাইয়ের লাশ পাওয়া গেছে।রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (অপরাধ) আবু মারুফ হোসেন জানান, লাশ উদ্ধার করে রোববার দুপুরে মর্গে পাঠানো হয়েছে। সুরুতহাল রিপোর্টে এমন কোন আলামত পাওয়া যায়নি যাতে ধারণা করা যায় যে তাকে হত্যা করা হয়েছে।তিনি জানান, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে স্ট্র্রোক কিংবা বিষপানে তার মৃত্যু হতে পারে। তবে পুরো বিষয়টি তদন্ত চলছে। ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন ও তদন্ত শেষ হওয়ার পর প্রকৃত ঘটনা জানা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.