টমটমে চড়ে বিয়ে করে কনেকে নিয়ে ৭ গ্রাম ঘুরলেন বর

টমটমে চড়ে বিয়ে করতে এলেন সৌদি প্রবাসী বর। নববধূকে নিয়ে ঘুরেছেন সাতটি গ্রাম। বর মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ভাটপাড়া গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে মিঠুন। কনে মেহেরপুর সদর উপজেলার কালীগাংনী গ্রামের আবু বক্করের মেয়ে পিংকী। কালের বিবর্তনে আর যানবাহনে আধুনিকতার ছোঁয়ায় এখন হারিয়ে গেছে একসময়ের নবাবী বাহন টমটম। মাঝে মধ্যে দু-একজন টমটমে চড়ে বেড়াতে বের হন। জানা যায়, বাবার ইচ্ছা অনুযায়ী মঙ্গলবার টমটমে চড়ে বিয়ে করতে আসেন মিঠুন। বিয়ের সব পর্ব শেষে বর- কনেকে ঘোরানো হয় সাত সাতটি গ্রাম। টমটমে বর ও নববধূকে দেখতে মানুষের ভিড় জমে রাস্তার দুপাশে।

বর মিঠুন জানান, বাবার ইচ্ছা অনুযায়ী গ্রাম-বাংলার ঐতিহ্য টমটমে চড়ে তিনি বিয়ে করতে আসেন। বিয়েতে টমটম গাড়ির ব্যবহার সবাইকে মুগ্ধ করেছে। গ্রামীণ ঐতিহ্য ধরে রাখতে যুবসমাজকে টমটমে বিয়ের আহ্বান জানান এ সৌদি প্রবাসী। মিঠুনের বাবা আলী হোসেন জানান, তার তিনটি সন্তান প্রতিবন্ধী। সব শেষে মিঠুন ভূমিষ্ঠ হলে ছেলেকে টমটমে চড়িয়ে বিয়ে করার ইচ্ছা পোষণ করেন। সে অনুযায়ী বিয়ের আয়োজন করা হয়।

গাংনী মহিলা ডিগ্রি কলেজের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক রমজান আলী বলেন, আগে রাজা-বাদশা কিংবা জমিদার বাবুরা টমটমে চড়ে বেড়াতে কিংবা বিয়ের কাজটি সারতেন। যান্ত্রিকতার যুগে সেসব এখন বেমানান। তবুও গ্রামীণ ঐতিহ্যের এ বাহন আজও টিকে আছে, তবে তা অপ্রতুল। মিঠুনের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.