ভুতুড়ে ‘হালদার বিল’এখন বিনোদন কেন্দ্র

যেখানে ভূতের ভয়ে মানুষ আসতো না, সেই স্থানটিই এখন হয়ে উঠেছে বিনোদন কেন্দ্র। নরসিংদীর বেলাবো উপজেলার শেষ প্রান্তে শিবপুর ও রায়পুরা উপজেলার মিলনস্থল। এখানেই হালদার বিল। বিলটি এখন বিনোদন কেন্দ্র হয়ে উঠেছে।
এখানকার নৈসর্গিক সৌন্দর্য আর মনোরম পরিবেশ মানুষকে প্রাকৃতিক ও কৃত্রিম উভয় সৌন্দর্য উপভোগ করার সুযোগ

এনে দিয়েছে।গোধুলি বেলায় পশ্চিম আকাশে সূর্যাস্তের দৃশ্য যে কাউকেই পুলকিত করে। বিকেল হতেই শুরু হয় নানা শ্রেণি-পেশার মানুষের আনাগোনা। বিশেষ করে সাপ্তাহিক ছুটির দিনগুলোতে নারী, পুরুষ ও শিশুদের আনাগোনায় মুখরিত হয়ে উঠে পুরো হালদার বুক। হালদাকে এভাবে সাজিয়ে তুলেছে তিনজন উদ্যোক্তা। উদ্যোক্তারা হলেন মো. বশির উদ্দীন,

মো. পারভেজ ও মো. লিটন। তাদের একান্ত চেষ্টায় এখানে গড়ে উঠেছে নান্দনিক ভাসমান রেস্তোরাঁ ‘রিফ্রেশ কফি শপ’। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন ধরনের খাবার মিলছে এই রেস্তোরাঁয়।পানিতে ভাসমান রেস্তোরাঁটির প্রধান ফটকের সঙ্গে অফিস আর ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে নয়টি মনোরম ঘর। প্রতিটি ঘরে যাওয়ার জন্য রয়েছে কাঠ আর লোহার পাতে তৈরি চমৎকার

রাস্তা। প্রতিটি ঘর এত সুন্দর আর আকর্ষণীয় ভাবে সজ্জিত যে ছোট-বড় সবাইকে মোহিত করে। সন্ধ্যা থেকেই রঙিন আলোর বাতিগুলো জ্বলে উঠলে পুরো এলাকাটি আরো আকর্ষণীয় হয়ে উঠে। অথচ একটা সময় এই হালদার বিল ছিল মানুষের জন্য এক আতঙ্কের নাম। এখান দিয়ে আসা যাওয়া তো দূরের কথা গোধূলির পর থেকে মানুষের চলাচল বন্ধ হয়ে

যেত। গ্রামের মানুষগুলোও সন্ধ্যার পর এ পথে আসা যাওয়া করত না। নির্জন, ভুতুড়ে হালদার বিলে বড়-ছোট মাছ, শাপলা আর উভয় তীরে গাছ। গাছে-গাছে পাখি। মানুষেরা এদিকে সন্ধ্যার পর আসতো না- নানা কারণে। সেকালে লোকমুখে ভূত-পেত্নীর অস্তিত্বের গল্প ছিল। এছাড়াও ডাকাত আর সর্বহারাদের ভয়ে তটস্থ থাকতো মানুষ। বেলাব-মরজাল

সড়কটি নির্মাণের সঙ্গে সঙ্গে এখানে একটি স্টিলের ব্রিজ করা হয় এবং মানুষের যোগাযোগের দ্বার উন্মোচিত হতেই অপার সৌন্দর্যে ভরপুর স্থানটি জনপ্রিয়তা পেয়ে যায়। অধুনা হালদার উপর নির্মিত ব্রিজ, ব্রিজের উভয় পাশের বেড়িবাঁধ, সন্ধ্যায়

রঙিন বাতির ঝলকানি ছড়িয়ে পড়ে। তার থেকে একটু দূরে পাখিদের কিচিরমিচির শব্দ উপভোগের পর দেশি ও বিদেশি খাবার গ্রহণের সুযোগ। ক্লান্ত শরীরকে চাঙা করতে এক কাপ ফ্রেশ কফি সত্যিই কর্মব্যস্ত মানুষের জীবনে ভিন্নমাত্রা এনে দেয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.