মুকেশ আম্বানির ৪০০ কোটি টাকার জাহাজ, ভেতরে কোন রাজপ্রসাদের চেয়ে কম না

ভারত ও এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তিদের মধ্যে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন শিল্পপতি মুকেশ আম্বানি। শুধু তাই নয় মুকেশ আম্বানির নাম গোটা পৃথিবীর ১০ জন সবচেয়ে ধনী ব্যক্তিদের তালিকায় ৭ নম্বরে রয়েছে। বলা যেতে পারে মুকেশ আম্বানি এই পৃথিবীর ধনী ও বিখ্যাত শিল্পপতিদের মধ্যে অন্যতম। এছাড়া জানিয়ে দি মুকেশ আম্বানি ও তার পরিবার প্রায় তাদের ব্যবসা, ব্যক্তিগত জীবন ও বিশেষ করে লাক্সারি জীবনযাপনের জন্য আলোচনার বিষয় হয়ে থাকে। বলা যেতে পারে পৃথিবীতে এমন কোনো লাক্সারি বস্তু নেই যেটা আম্বানি পরিবারের কাছে নেই। সবচেয়ে দামি বাড়ি থেকে শুরু করে সবচেয়ে দামি গাড়ি পর্যন্ত সবকিছুই রয়েছে আম্বানি পরিবারের কাছে। তাই আজ আমরা আমাদের আর্টিকেলে মুকেশ আম্বানির লাক্সারি লাইফ স্টাইল বা প্রপার্টির বিষয় আরেকটি তথ্য শেয়ার করবো।

জানিয়ে দি যে মুকেশ আম্বানির কাছে রয়েছে সমুদ্রে ভাসমান একটি প্রাইভেট ইয়ট। এই প্রাইভেট ইয়টের দাম হোক প্রায় ৪০০ কোটি টাকা। আর এই ইয়টে একটি ২৫ মিটারের ব্রিজ, একটি স্পা, একটি হেলিপ্যাড, জিম, ম্যাসেজ রুম, মিউজিক রুম, সিনেমা হল, লোন, পিয়ানো বার এবং ডাইনিং রুম সহ বিভিন্ন লাক্সারি জিনিস রয়েছে। জানিয়ে ইয়টটি মুকেশ আম্বানি নিজের স্ত্রী নিতা আম্বানিকে তার বার্থডেতে গিফ্ট করেছিলেন।

গুজব রয়েছে যে মুকেশ আম্বানি নিজের জন্য যতটানা জিনিস কেনে তার বেশি জিনিস তিনি তার স্ত্রী নিতা আম্বানিকে গিফ্ট দেওয়ার জন্য কেনেন। কারণ মুকেশ আম্বানি জানিয়েছেন যে তার জীবনে তার স্ত্রী নিতা আম্বানির অনেক গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে এবং আজ তিনি সফলতার যেই চূড়ায় রয়েছে তাতে অনেক বড় ভূমিকা রয়েছে তার স্ত্রীর।

মঙ্গলগ্রহ থেকে পৃথিবীতে আসলো এই বালক, দাবি শুনে থমকে গেল নেটিজেনরা

মুকেশ আম্বানির এই বিলাসবহুল ইয়টটি কোনো প্রাসাদের চেয়ে কম নয়। আম্বানিরা পুরো পরিবার মিলে উইকএন্ডে এই ইয়টে সময় কাটিয়ে থাকেন। এই ইয়টে একসঙ্গে ৫০ থেকে ৭০ জন ভ্রমণ করতে পারবে বলে জানা গেছে। এই ইয়ট ৬৮ মিটার লম্বা, ৩৪ মিটার চওড়া এবং মেঝের এলাকা ৩৬৬০০ বর্গফুটের। এআর এই প্রাইভেট ইয়টের ৯০৭০০ বর্গফুট এলাকায় সোলার প্যানেল বসানো হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.