গৃহবধূকে জনসম্মুখে ‘নগ্ন হয়ে’ গোসল করতে বাধ্য করলো স্বামী

ভারতের মহারাষ্ট্র প্রদেশের পুনেতে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে যুবতী গৃহবধূকে জনসম্মুখে ‘নগ্ন হয়ে’ গোসল করানোর অভিযোগ উঠেছে। ছেলে সন্তান লাভের লোভে এ ভয়ানক কাণ্ড ঘটান স্বামী ও স্বজনরা।
মঙ্গলবার ভারতের সংবাদ সংস্থা এএনআইয়ের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়। প্রতিবেদনে বলা হয়, ছেলে সন্তান লাভের লোভে এক জাদুকরের পরামর্শ অনুযায়ী ৩০ বছরের নারীকে জনসাধারণের সামনে একটি জলপ্রপাতে নগ্ন হয়ে গোসলের নির্দেশ দেন স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

ঐ নারী জানান, তাকে জাদুবিদ্যার ‘শাস্ত্রীয় আচারের’ অংশ হিবেবে নগ্ন হতে বাধ্য করা হয়। পুলিশ বলছে, পুনের এক ব্যবসায়ীকে ২০১৩ সালে বিয়ে করেন ঐ নারী। বিয়ের পরপর তার ওপর নির্যাতন শুরু করে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন। অভিযোগে ঐ নারী বলেন, স্বামী তার সোনার গহনা বিক্রি ও তার বাবা-মায়ের দেওয়া সম্পত্তি একটি ব্যাংকে বন্ধক রেখে ৭৫ লাখ রুপি ঋণ নেন। ঋণের জন্য তার স্বাক্ষর স্বামী জাল করেছেন। দেশটির দৈনিক ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস বলছে, ঐ নারীর স্বামী কোলহাপুরের এক জাদুকরের কাছে যান। জাদুকর ‘ব্যবসায় লাভের’ জন্য কিছু আচার-অনুষ্ঠান পালন করতে বলেছিলেন।

জাদুকর বাবা জামাদার ঐ নারীকে একেবারে জনসম্মুক্ষে উন্মুক্ত জলপ্রপাতে গোসলের জন্য রায়গড়ে নিয়ে যাওয়ার নির্দেশ দেন। তার স্বামীকে এ জাদুকর বলেন, সেখানে নগ্ন হয়ে গোসল করলে তার স্ত্রী ছেলে সন্তান জন্ম দিতে পারবেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুনে পুলিশ রোববার ঐ নারীর স্বামী, শ্বশুর ও জাদুকরসহ চারজনের বিরুদ্ধে একটি এফআইআর নথিভুক্ত করেছে।

পুনের ভারতী বিদ্যাপীঠ থানার জ্যেষ্ঠ পুলিশ পরিদর্শক জগন্নাথ কালস্করের বরাত দিয়ে বার্তা সংস্থা এএনআই বলছে, পুলিশ ভারতীয় দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারাসহ মহারাষ্ট্রের মানব বলিদান নির্মূল, অমানবিক অনাচার ও কালোজাদু আইন, ২০১৩’র অধীনে চারজনের বিরুদ্ধে একটি মামলা করেছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.