ভয় দেখাতে গিয়ে পেটে ছুরি ঢুকিয়ে মেরেই ফেললেন স্ত্রীকে

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে পারিবারিক কলহের জেরে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে ছুরি নিয়ে ভয় দেখাতে যান স্বামী মাসুদ গাজী খোকন (৩০)। সেই ছুরি পেটে ঢুকে মারা যান স্ত্রী আসমা আক্তার (৩০)।গত ১৮ আগস্ট ভোর রাতে উপজেলার দক্ষিণ চরবংশী ইউনিয়নের চরকাচিয়া গ্রামের হাজিমারা আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ঘরে এ ঘটনা ঘটে।

ঘটনার পর পালিয়ে যান ঘাতক স্বামী খোকন। রোববার (২১ আগস্ট) রাতে তাকে চট্টগ্রাম থেকে গ্রেফতার করে রায়পুর থানা পুলিশ। এরপর তিনি পুলিশের কাছে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জবানবন্দি দেন।লক্ষ্মীপুর জেলা পুলিশ সুপার (পদোন্নতিপ্রাপ্ত অতিরিক্ত ডিআইজি) ড. এএইচএম কামরুজ্জামান সোমবার (২২ আগস্ট) দুপুরে সংবাদ সম্মেলনে

এতথ্য জানান। তিনি বলেন, গত শনিবার (২০ আগস্ট) দুপুরে উপজেলার হাজিমারা আশ্রয়ণ প্রকল্পের ঘর থেকে আসমা নামে এক নারীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এদিন সকালে স্থানীয় লোকজন ওই ঘরে দুর্গন্ধ পেলে পুলিশকে খবর দেন। মরদেহ উদ্ধারের পর সেটির ময়নাতদন্ত করা হয়। ঘটনাটি হত্যাকাণ্ড প্রতীয়মান হওয়ায় ভিকটিমের স্বামীকে সন্দেহ করা হয়।

তিনি বলেন, ভিকটিম আসমার মা অজুফা বেগম বাদী হয়ে হত্যার ঘটনায় আসমার পলাতক স্বামী খোকনের নামে মামলা করেন। মরদেহ উদ্ধারের পর থেকে পুলিশ তার স্বামীকে খুঁজতে থাকে। রোববার রাত সোয়া ২টার দিকে চট্টগ্রামের বটতলী রেলস্টেশন থেকে খোকনকে গ্রেফতার করা হয়। পরে তিনি পুলিশের কাছে ঘটনার দায় স্বীকার করেন। চট্টগ্রাম থেকে

গ্রেফতারের পর তাকে রায়পুর থানায় নিয়ে আসা হয়। সোমবার (২২ আগস্ট) দুপুরে তাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। পুলিশ সুপার বলেন, ঘাতক খোকনের বাড়ি মুন্সীগঞ্জের গাজির চর এলাকায়। ঘটনার পর তিনি নারায়ণগঞ্জে পালিয়ে যান, সেখান থেকে চট্টগামে।

তিনি বলেন, খুব অল্প সময়ে আমরা হত্যার রহস্য উদঘাটন করতে সক্ষম হয়েছি এবং ঘাতককে গ্রেফতার করতে পেরেছি। এছাড়া গত ১৮ আগস্ট একই উপজেলার রায়পুর ইউনিয়নের দেবীপুরের একটি সুপারি বাগান থেকে লায়লা নুর নিপু (২৫) নামে এক গৃহবধূর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। খুব অল্প সময়ের মধ্যে ওই ঘটনার রহস্যও উদঘাটন করে

তার কথিক প্রেমিক হত্যাকারী সোহাগকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়া আরেক হত্যাকারী রফিককে গ্রেফতারের জন্য পুলিশের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।কুমিল্লা থেকে পরকীয়া প্রেমিকের সঙ্গে লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে এসে ধর্ষণের শিকার হয়ে খুন হয় নিপু। মৃত আসমা উপজেলার দক্ষিণ চরবংশী ইউনিয়নের চরকাচিয়া গ্রামের ওসমান দর্জির মেয়ে। ঘাতক খোকন তীয়

স্বামী। আসমাও খোকনের দ্বিতীয় স্ত্রী। প্রায় এক মাস আগে রায়পুরের হাজিমারা এলাকার সরকারি আশ্রয়ণ প্রকল্পের একটি ঘরে তারা মাসিক ৫০০ টাকা ভাড়া দিয়ে বসবাস করতেন। আসমার স্বামী পেশায় শ্রমিক ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.