ভোলায় ট্রলারসহ ১৪ জেলে জীবিত উদ্ধার

ভোলার চরফ্যাশনে নিখোঁজ ৫৬ জেলের মধ্যে ১৪ জেলেকে জীবিত উদ্ধার করেছে কোস্টগার্ড। এখনো নিখোঁজ রয়েছেন ৪৬ জেলে। প্রিয় স্বজনকে ফিরে পেয়ে পরিবারে আনন্দ বিরাজ করছে। রোববার ট্রলারসহ তাদের উদ্ধার করা হয়। অন্যদিকে, নিখোঁজ ৪৬ জেলের ফিরে আসা নিয়ে পরিবারের সবাই চিন্তিত।

বৈরি আবহাওয়ায় সাগরে থাকায় মোবাইল ও ডিভাইসের মাধ্যমে জেলেদের সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন থাকায় জেলেদের জীবন নিয়ে অজানা আশঙ্কার দুইদিন কেটেছে পরিবারের সদস্যদের। দুইদিন পরে প্রিয়জনকে পেয়ে পরিবারে আনন্দ বিরাজ করছে। অন্যদিকে নিখোঁজ ৪২ জেলে ফিরে আসা নিয়ে শঙ্কায় দিন কাটছে পরিবারের সদস্যদের।

চর মানিকার কচ্ছপিয়ার বারেক মাঝির এম বি লামিয়া ট্রলারের ১৭ জন জেলে, আহাম্মদপুর ও জাহানপুরের খোকন মাঝির ১৩ ও মান্নান মাঝির ১২ জেলে এখনও নিঁখোজ রয়েছে ৪২ জেলে। রোববার বিকাল পর্যন্ত ৬ ট্রলারের ১৪ জেলে ঝড়ের কবলে পরে বিভিন্ন এলাকায় আশ্রয় নেওয়ার পর যার যার বাড়ি ফিরেছে।

বঙ্গোপসাগরে মাছ শিকারে গিয়ে ঝড়ের কবলে পড়ে চরফ্যাশনের চরকচ্ছপিয়ার ‘এমভি মায়ের দোয়া’ নামে আলমগীর মাঝির ১৪ জেলেসহ মাছ ধরার ট্রলার।রোববার বিকালে চরমানিকা মানিকা কোস্ট গার্ডের একটি টিম বঙ্গোপসাগরে উদ্ধার অভিযান পরিচালনা করে একটি ফিসিং ট্রলারসহ ১৪ জন জেলেকে জীবিত উদ্ধার করেন। চরমানিকা কোস্টগার্ড

আউটপোস্ট কন্টিনজেন্ট কমান্ডার মো. অলিউল্লাহ এ তথ্য জানান।চরফ্যাশনের চরকচ্ছপিয়া মৎস্য ঘাট থেকে ১৪ জন জেলেসহ ‘মায়ের দোয়া’ আলমগীর মাঝি ফিসিং ট্রলার সমুদ্রে মাছ ধরতে যায়। এর পর গত ১৭ আগস্ট বৈরি আবহাওয়ার কবলে পড়ে ভারতের কাছাকাছি চলে যায়, দীর্ঘ ৪৫ ঘন্টা ট্রলার চালিয়ে চরপাতিলার ডাউনে বঙ্গোপসাগর সাগর মোহনায়

এসে ইঞ্জিন বিকল হয়ে সমুদ্রে ভাসতে থাকে।রোববার বিকালে কোস্টগার্ডের একটি টিম টহলরত অবস্থায় চরপাতিলার কাছাকাছি থেকে ১৪ জন জেলেসহ একটি ফিশিং ট্রলার উদ্ধার করে। ফিশিং ট্রলারটি উদ্ধারের পর জেলেদের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদানের পরে প্রয়োজনীয় খাদ্য সরবরাহ করা হয়।

উদ্ধারকৃত জেলেরা হলেন- আলমগীর মাঝি (৪৫), হারুন মুন্সি (৫০), নুরনবি (৪০),আলাউদ্দিন (৩৯), আবুল কালাম (৩৮), ইউনুস সিকদার (৫২), আলাউদ্দিন (৪২),ইসমাইল (৪১),অজিউল্লা (৫১), ও কবির (৩২),আবদুল বারেক (৫০),আবু সিকদার মাঝি (৪৮) আব্দুর রহিম (২৮) ইউনুস সিকদার (৩২) এরা সবাই চরফ্যাশন উপজেলার দক্ষিণ

আইচা থানার, চরকুকরি-মুকরি ও চরমানিকা ইউনিয়নের বাসিন্দা। পরে উদ্ধারকৃত ১৪ জন জেলেকে তাদের পরিবারের নিকট হস্তান্তর করা হয়। চরমানিকা কোস্টগার্ড নিখোঁজ ৪২ জেলেদের উদ্ধার তৎপরতা অব্যাহত রয়েছে।

চরফ্যাশন উপজেলা সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মারুফ হোসেন মিনার বলেন, আল্লাহর অসীম কৃপায় আমরা নিখোঁজ ১৪ জেলের সন্ধান পেয়েছি। আশা করছি বাকি জেলেদের দ্রুত সময়ের মধ্যে উদ্ধার করতে সক্ষম হব।

Leave a Reply

Your email address will not be published.