প্রবেশিকা পরীক্ষায় পাস করেছিলেন ১৯৮৪ সালে। কিন্তু দারিদ্রের কারণে ডাক্তারি পড়তে পারেননি। কৃষিকাজ করে সংস্থান হয় জীবিকার। তাই বলে চিকিৎসক হওয়ার স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়নি ভারতের তামিলনাড়ুর কে রাজ্যক্কডির। সেই স্বপ্ন পূরণ করতেই চলতি বছর প্রবেশিকা পরীক্ষা ‘নিট’-এ বসলেন তিনি।

স্নাতকে ডাক্তারি পড়তে গেলে পাস করতে হয় অভিন্ন প্রবেশিকা পরীক্ষা যা ন্যাশনাল এন্ট্রান্স এলিজিবিলিটি টেস্ট (নিট) হিসেবে পরিচিত। সেই পরীক্ষা দিতেই ৫৫ বছর বয়সী রাজ্যক্কডি ভেলাম্মাল বিদ্যালয়ে হাজির হয়েছিলেন। তবে শুরুতেই বিপত্তি। পরীক্ষাকেন্দ্রে ঢোকার আগে অভিভাবক ভেবে তাকে আটকে দেন নিরাপত্তাকর্মীরা। শেষ পর্যন্ত অ্যাডমিট কার্ড দেখে ঢুকতে দেওয়া হয় তাঁকে।

পরীক্ষা কেমন হল? ডাক্তারি পড়ার সুযোগ কি পাবেন রাজ্যক্কডি? কেন্দ্র থেকে বেরিয়ে বেশ আত্মবিশ্বাসী তিনি। সাংবাদিকদেরকে জানিয়েছেন, পদার্থবিদ্যা ও রসায়ন পরীক্ষা ভালো হয়েছে। জীববিদ্যার প্রশ্ন কঠিন মনে হলেও তাঁর আশা, ৭২০ নম্বরের মধ্যে অন্তত ৪৬০ পাবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.