শরীরে হিমোগ্লোবিন তৈরিতে অবদান রাখে আয়রন। হিমোগ্লোবিন শরীরের বিভিন্ন অংশে অক্সিজেন সরবরাহ করে থাকে। আয়রনের অভাবে হিমোগ্লোবিন কমে, ফলে রক্তস্বল্পতাসহ নানা রোগের ঝুঁকি বেড়ে যায়। আমাদের দেশে অধিকাংশ মানুষের শরীরে আয়রনের ঘাটতি দেখা যায়।

তবে পুরুষের তুলনায় নারীরা এই সমস্যায় বেশি ভোগেন। প্রতিমাসে পিরিয়ডের কারণে নারীদের দেহে কিছুটা আয়রন ঘাটতি হয়। খাবারের মাধ্যমে পূরণ করতে না পারলে এই ঘাটতি থেকেই যায়। চলুন জেনে নেয়া যাক কোন কোন খাবার আয়রনের ঘাটতি পূরণ করে।

ছানা বা পনির, ডিম, চিকেন, কলিজা খেলেও শরীর পর্যাপ্ত পরিমাণ আয়রন পাবেন।একটি মাঝারি আকারের আপেলে রয়েছে শূন্য দশমিক তিন এক মিলিগ্রাম আয়রন। এটি হিমোগ্লোবিন তৈরিতে সাহায্য করে। এছাড়াও ডেজার্ট, সালাদ অথবা স্মুদি তৈরিতে আপেল ব্যবহার করা যায়।

এসব খাবার আয়রনের ঘাটতি পূরণ করে।ড্রাই ফ্রুটকিশমিশ, অ্যাপ্রিকট, কাজু বা আমন্ড- এসব খাবারে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন সি। যা শরীরকে আয়রন শুষে নিতে সাহায্য করে। সকালের খাবারের সঙ্গে খেতে এসব খাবার খেতে পারেন। সকালের খাবার ছাড়াও দিনের অন্য সময় এক মুঠো বাদাম আপনার আয়রনের ঘাটতি মেটাতে পারে।

ডার্ক চকলেটে প্রচুর পরিমাণে আয়রন রয়েছে। ডার্ক চকলেট শুধুমাত্র আয়রনের ঘাটতিই পূরণ করেনা, স্ট্রেস কমায় এবং ত্বক ও চুল ভালো রাখে।ডাল প্রায় প্রতিদিনই থাকে অনেকের খাবারের তালিকায়। সিদ্ধ ডালের পানি প্রতিদিন খেলে উপকার পাবেন।সয়াবিন আয়রন, ক্যালসিয়াম,

ম্যাগনেশিয়াম ও সেলেনিয়ামের ভালো উৎস। নিয়মিত সোয়াবিন খেলে হার্টের অসুখ, ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি কমে যায়। আয়রনের একটি ভালো উৎস হলো খেজুর। আয়রনের ঘাটতি পূরণ করতে প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় খেজুর রাখতে পারেন।
মাশরুম, ব্রোকলি, গরু বা খাসির কলিজা আয়রনের ভালো উৎস।এসব খাবার গ্রহণ করে আয়রনের ঘাটতি পূরণ করা যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.