রাজধানীর ধোলাইখাল রায়সাহেব বাজার এলাকায় ঘুমন্ত অবস্থায় তুষার নামে এক পোশাক শ্রমিকের বিশেষ অঙ্গ কেটে ফেলেছেন তার দ্বিতীয় স্ত্রী নার্গিস। পরে নিজেই স্বামীকে চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। শনিবার রাত ৯টার দিকে ওয়ারী ধোলাইখাল রায় সাহেব বাজার নাভানা টাওয়ারের পেছনে একটি ভাড়া বাসায় এ ঘটনা ঘটে। নার্গিস বলেন, আমি তুষারের দ্বিতীয় স্ত্রী। তার বড় স্ত্রী তাকে ছেড়ে চলে গেছেন। গত মার্চ মাসে তুষার আরো একটা বিয়ে করেন। তিনি নতুন স্ত্রীকে নিয়ে কেরানীগঞ্জ এলাকায় থাকেন। তিনি আরো বলেন, আমার অনুমতি না নিয়ে তিনি আরেকটি বিয়ে করেছেন এবং আমার কাছে প্রথমে সেটি অস্বীকার করেছেন।

এ নিয়ে প্রায় আমাদের মধ্যে ঝগড়া হতো। আমার স্বামী একটি গার্মেন্টসে চাকরি করেন। বেতন পান ১০ হাজার টাকা। এ টাকা দিয়ে আমাদের সংসার চলে না। আমাদেরও একটি ছয় মাস বয়সের মেয়ে আছে। কিছুদিন আগে তিনি আমার কাছে বিয়ের কথা স্বীকার করেন। ঘটনার বর্ণনা দিয়ে নার্গিস বলেন, আমার স্বামী বাসায় ঘুমিয়ে ছিলেন। জমানো ক্ষোভের কারণে ঘুমন্ত অবস্থায় ছোরা দিয়ে স্বামীর পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলি। পরে স্থানীয় কয়েকটি হাসপাতাল ঘুরে তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করি। প্রচণ্ড জিদের কারণে আমি এ কাজ করেছি। তবে আমি অন্যায় করেছি।

ঢাকা মেডিকেল পুলিশ ক্যাম্পের (ইনচার্জ) ইন্সপেক্টর বাচ্চু মিয়া জানান, হাসপাতালে তুষারের চিকিৎসা চলছে। তার সম্পূর্ণ পুরুষাঙ্গ কেটে ফেলা হয়েছে। নার্গিস বর্তমানে পুলিশ হেফাজতে আছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.