যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (যবিপ্রবি) অনুষ্ঠিত গুচ্ছভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছেন সেই তামান্না আক্তার নুরা।
দুই হাত ও এক পা বিহীন বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন এ শিক্ষার্থীর বাড়ি যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার বাঁকড়া গ্রামে।

শনিবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব একাডেমিক ভবনের কেন্দ্রীয় গ্যালারিতে গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর ‘এ’ ইউনিটের স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা দেন তিনি। তাকেসহ আরো দুজন বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিক্ষার্থী ভর্তি পরীক্ষার্থীর জন্য বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়।

পরীক্ষা শেষে তামান্না নুরা বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার ইচ্ছা থাকলেও অন্যান্য ভাই-বোনদের খরচ চালিয়ে বাবার পক্ষে পড়ানো কঠিন হয়ে পড়বে। তাই যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সিদ্ধান্ত নেই।পরীক্ষা সংশ্লিষ্টরা জানান, গুচ্ছভুক্ত অন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো

যবিপ্রবিতে স্নাতক প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রথম দিন ‘এ’ ইউনিটে যবিপ্রবিতে আসন পড়ে ৩ হাজার ৮৬১ জন শিক্ষার্থীর। এর মধ্যে যবিপ্রবিতে ৯৬ শতাংশের বেশি শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।এর আগে, এক পায়ে লিখে এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে এলাকায় সাড়া

ফেলেন তামান্না। এ নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে তামান্নাকে ফোন করে খোঁজখবর নেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও তার ছোট বোন শেখ রেহানা। একই সঙ্গে তামান্নার স্বপ্নপূরণে যেকোনো সহযোগিতার আশ্বাস দেন তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.