পশ্চিম তীর ক্রমাগত দখল করে ইসরায়েলের বসতি স্থাপনকে ‘আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘনের জ্বলন্ত উদাহরণ’ উল্লেখ করে উদ্বেগ প্রকাশ করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। একইসঙ্গে ইসরায়েলকে ‘বর্ণবাদী রাষ্ট্র’ হিসেবে তালিকাভুক্ত করার দাবি করেছে দেশটির সরকার।
প্রশাসনিক রাজধানী প্রিটোরিয়ায় দেশটির ফিলিস্তিনি মিশন প্রধানদের দ্বিতীয় বৈঠকে দক্ষিণ আফ্রিকার আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও সহযোগিতা বিষয়ক মন্ত্রী নালেদি প্যান্ডর বলেন, ফিলিস্তিনের ঘটনা দক্ষিণ আফ্রিকার জাতিগত বিভাজন ও নিপীড়নের ইতিহাসকে স্মরণ করিয়ে দেয়।

তিনি বলেন, নিপীড়িত দক্ষিণ আফ্রিকান হিসেবে আমরা সরাসরি জাতিগত ভেদাভেদ, বৈষম্য ও নিগ্রহের সম্মুখীন হয়েছি। এখন যখন ফিলিস্তিনিদের আরেকটি প্রজন্ম বঞ্চিত হচ্ছে তখন আমরা তা চুপচাপ দাঁড়িয়ে দেখতে পারি না। প্যান্ডর বলেন, প্রিটোরিয়া বিশ্বাস করে যে ইসরায়েলকে একটি বর্ণবাদী রাষ্ট্র হিসেবে তালিকাভুক্ত করা উচিত। একইসঙ্গে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ (ইউএনজিএ)-এর এ সংক্রান্ত বৈশিষ্ট্যগুলো যাচাই করার জন্য একটি কমিটি গঠনের দাবিও জানান তারা। অধিবেশন শেষে ফিলিস্তিনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী রিয়াদ মালকি দক্ষিণ আফ্রিকার রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ব্রডকাস্টিং কর্পোরেশনের (এসএবিসি) সঙ্গে কথা বলেন।

তিনি বলেন, যদি এমন কোনো দেশ বা মহাদেশ থাকে যারা ফিলিস্তিনের মুক্তি ও স্বাধীনতার সংগ্রাম এবং দুর্ভোগ বুঝতে পারে, তবে তারা হলো আফ্রিকা মহাদেশ ও তাদের জনগণ।

সূত্র: আল-জাজিরা

Leave a Reply

Your email address will not be published.