গাজীপুরের কালিয়াকৈরে স্বামীর অধিকার পেতে শ্বশুরবাড়িতে ওঠেন প্রথম স্ত্রী। কিন্তু তাকে মারধর করে মোবাইল ছিনিয়ে নেন স্বামী ও তার পরিবারের লোকজন। এমনকি তাকে শ্লীলতাহানি করেন ভাসুর। এমনই অভিযোগ ভুক্তভোগীর। বৃহস্পতিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। অনশন করা তরুণীর নাম খাদিজা আক্তার মনিকা। ১৯ বছর বয়সী মনিকা কালিয়াকৈর উপজেলার উত্তর হিজলতলী এলাকার আক্কাছ আলী মোল্লার মেয়ে।ভুক্তভোগীর পরিবারের তথ্যমতে, এক বছর আগে নিজ উত্তর হিজলতলী এলাকার বাড়িটি বিক্রি করে দেন আক্কাছ আলী মোল্লা। পরে স্ত্রী ও মেয়ে মনিকাকে নিয়ে পাশের নয়ানগর এলাকার আব্দুল কাদেরের বাড়িতে থাকছিলেন তিনি।

এ সুযোগে তার সঙ্গে বাড়িওয়ালার ছেলে জুয়েল রানার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। দুই বছরের প্রেম ও শারীরিক সম্পর্কের পর চলতি বছরের ১১ জুন টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার গোড়াই এলাকায় একটি কাজি অফিসে ১০ লাখ টাকা কাবিনে বিয়ে করেন তারা। এর আগে ২০২১ সালের ২০ ডিসেম্বর গাজীপুর আদালতে তারা নোটারি পাবলিকের মাধ্যমে কোর্ট ম্যারেজ করেন। এরপর ঢাকার মিরপুরে বাসা ভাড়া নিয়ে পরিবারের সঙ্গে থাকছিলেন মনিকা।

চার মাস আগে প্রথম স্ত্রীর বিষয়টি গোপন রেখে জুয়েলকে বিয়ে করান পরিবারের লোকজন। বিষয়টি জানতে পেরে স্বামীর অধিকারের দাবিতে বৃহস্পতিবার সকালে নয়ানগর শ্বশুরবাড়িতে অনশনে বসেন প্রথম স্ত্রী মনিকা। কিন্তু তাকে কাঠ দিয়ে মারধর করেন শ্বশুর-শাশুড়ি, সতিন ও ননদ। একপর্যায়ে ৯৯৯-এ ফোন দেন মনিকা। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বাড়িতে এসে তাকে মারধর ও শ্লীলতাহানি করেন ভাসুর সোহেল রানা। এ সময় ধারণ করা স্বামী-স্ত্রী ও মারধরের প্রমাণ নষ্ট করার জন্য তার মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেন তিনি। পরে ঘটনাস্থলে হাজির হন কালিয়াকৈর থানার এসআই হাফিজুল ইসলাম। কিন্তু পুলিশের উপস্থিতিতে তাকে তাড়িয়ে দেন স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

খাদিজা আক্তার মনিকা বলেন, আমার স্বামী গোপনে দ্বিতীয় বিয়ে করেছেন। এমন খবরে স্বামীর অধিকারের দাবিতে শ্বশুরবাড়ি আসি। কিন্তু আমাকে মারধর করেন শ্বশুরবাড়ির লোকজন। এছাড়া আমার শ্লীলতাহানি করেন ভাসুর। এ বিষয়ে কোনো কিছু বলতে রাজি হননি অভিযুক্ত স্বামী জুয়েল রানা। তবে জুয়েলের বাবা আব্দুল কাদের রেগে গিয়ে বলেন, তাকে মারধর করা হয়নি। জুয়েলের বড় ভাই সোহেল রানা বলেন, তাকে মারধর ও শ্লীলতাহানি করা হয়নি।

কালিয়াকৈর থানায় এসআই হাফিজুল ইসলাম বলেন, এ ঘটনায় একটি অভিযোগ দিয়েছেন ওই তরুণী। পরে তাকে মারধরের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে থানায় ডিজি ও আদালতে মামলা করার জন্য বলা হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.