দেশের জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছেন ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসক। আজ মঙ্গলবার ১৮ জানুয়ারি দুপুরে মিটফোর্ড হাসপাতালের মর্গে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করেন ফরেনসিক বিভাগের চিকিৎসকরা।

এ বিষয়ে ফরেনসিক বিভাগের প্রধান ডা.সোহেল মাহমুদ জানান, মৃত ওই নারীর গলায় দাগ দেখা গেছে। ধারণা করা হচ্ছে রশি অথবা এই জাতীয় কিছু দিয়ে পেঁচিয়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়েছে। তার শরীর থেকে ভিসেরা সংগ্রহ করা হয়েছে। এছাড়া মৃত্যুর আগে ধর্ষিত হয়েছে কিনা ডিএনএ নমুনাও সংগ্রহ করা হয়েছে। এর আগে রাজধানীর কেরানীগঞ্জ থেকে গতকাল সোমবার শিমুর বস্তাবন্দি মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় জড়িত থাকার সন্দেহে রাতেই তার স্বামী খন্দকার শাখাওয়াত আলীম নোবেল ও তার বন্ধু এসএমওয়াই আব্দুল্লাহ ফরহাদকে আটক করে পুলিশ।

এরপর আজ মঙ্গলবার দুপুরে এ বিষয়ে নিজ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরেন ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার মারুফ হোসেন সরদার। তিনি জানান, শিমু হত্যার কথা প্রাথমিকভাবে স্বীকার করেছেন তার স্বামী নোবেল। মরদেহটি গুম করার চেষ্টা করা হয়েছিল।

তিনি বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে এই হত্যাকাণ্ডে শিমুর স্বামী নোবেল ও তার বাল্যবন্ধু ফরহাদের সংশ্লিষ্টতার তথ্য পাওয়া গেছে। বিভিন্ন পারিবারিক বিষয়কে কেন্দ্র করে স্বামী নোবেলের সঙ্গে দাম্পত্য কলহ শুরু হয় শিমুর। এর জেরে গত ১৬ জানুয়ারি সকাল ৭টা থেকে ৮টার মধ্যে তাকে খুন করা হয়ে থাকতে পারে।

এ তিনি আরও বলেন, ‘আমরা ইতিমধ্যে যে গাড়ি ব্যবহার করে লাশ গুমের চেষ্টা করা হয়েছে সেই গাড়িটি জব্দ করে থানায় নিয়েছি এবং অন্যান্য আলামত সংগ্রহ করেছি। মডেল শিমুর স্বামী নোবেল এবং তার বাল্যবন্ধু ফরহাদ বর্তমানে থানা হেফাজতে আছে। মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।’

Leave a Reply

Your email address will not be published.